Wednesday, June 19, 2024
মূলপাতানেত্রকোনার সংবাদনেত্রকোনা সদর উপজেলাফেইসবুকের হেল্পলাইন গ্রুপে বিভ্রান্তিকর পোষ্টে জনমনে আতঙ্ক

ফেইসবুকের হেল্পলাইন গ্রুপে বিভ্রান্তিকর পোষ্টে জনমনে আতঙ্ক

বর্তমানে সোস্যাল মিডিয়া (ফেইসবুক) জগতে মানুষ এক নিমিষে একটি তথ্য পৃথিবী জুরে ছড়িয়ে দিতে পারে। আর সেই তথ্য দারা কিছু কিছু ক্ষেত্রে মানুষের যেমন উপকার হচ্ছে তেমনি অপকারও হচ্ছে। মুহূর্তের মধ্যে বিভ্রান্ত ছড়িয়ে জনমেন আতঙ্কেরও সৃষ্টি হচ্ছে। প্রাণনাশেরও ঘটনা ঘটছে। আর ডিজিটাল এই সুবিধাকে পুঁজি করে অসৎ শ্রেণির কিছু মানুষ ফায়দা লুটছে।

তেমনি নেত্রকোনার বাংলা ইংরেজি সহ বেশ কয়েকটি নেত্রকোনা হেল্পলাইন নামের ফেইসবুক গ্রুপে এমন এক পোষ্টের মাধ্যমে দ্রুত বিভ্রান্ত ছড়ায়। শনিবার দুপুরে করা পোষ্টটিতে লাইক কমেন্ট ও শেয়ার লক্ষ্য করা যায় ভিন্ন ভিন্ন মতের। পোষ্টটিতে ঢাকা মোহনগঞ্জগামী হাওর এক্সপ্রেস নামের আন্তঃনগর ট্রেনের তিন ঘন্টা থেকে থাকার কাহিনী লিখা রয়েছে। যা নেত্রকোনা সদরের ঠাকুরোকোনা রেল ব্রিজ এলাকায় দেখানো হয়েছে। এতে বানান যেমন ভুল রয়েছে তেমনি অবিশ্বাস্য বিভ্রান্তকর তথ্য রয়েছে।

তবে ট্রেনের ব্যাপারে ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করতে নেত্রকোনা বড় ষ্টেশনের ইনচার্জ ষ্টেশন মাস্টার নাজমুল হকের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এমন কোন ঘটনার খবর পাইনি। রাত  ১০ টা ১৫ তে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা হাওর এক্স্রপ্রেস ট্রেনটি ভোর রাতে নেত্রকোনা পৌঁছে রাত ৩ টা ৫২ মিনিটে নেত্রকোনা বড় ষ্টেশন ছেড়ে গেছে। ঠাকুরাকোনা পার হয়ে বারহাট্টা ষ্টেশনে ৪ টা ২০ মিনিটে ট্রেনটি থামে। এখন তিনঘন্টা কিভাবে থামলো এ বিষয়ে তিনিও অবাক হলেন।

তিনি বলেন ট্রেনে কোন সমস্যা হলে বা এক মিনিট থেমে থাকলেও ট্রেন থেকে জানানোর কথা। ২৮ মিনিটে নেত্রকোনা থেকে বারহাট্টা পৌঁছলে এর মাঝখানে তিনঘন্টা কিভাবে থেমে থাকে তা নিয়ে তিনি বলেন আমার মাথায়ও কিছু ধরে না।

এদিকে একটি ফেইসবুক গ্রুপের এডিমিন আল আমিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রুপে তো অনেকেই আরো এডমিন রয়েছে। কখন যে কে কিভাবে কোনটা এপ্রভ করে তা বলা মুশকিল। তবে আমি যে কোন পোষ্ট কিছুটা হলেও যাচাই করে দেই।

অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন অপত্তিকর কথা বলে জানান, কিছু ফেইসবুকার রয়েছে দেশে অশান্তি অবস্থার সৃষ্টি করতে এগুলো করে থাকে। আবার এও হতে পারে কিছু জায়গাকে অলৌকিক বানিয়ে টাকা পয়সার ধান্দা করতেও এগুলো করে থাকে। রেল লাইনকে ঘষে নষ্ট করে ছবি তুলে বিভ্রান্ত ছড়ানোর জন্য পোষ্টদাতাসহ গ্রুপগুলোর প্রতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে নিয়ে ব্যাবস্থা নেয়ার দাবী জানান।

যে পোস্ট নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে সেটি  হুবহু তুলে ধরা হলো-
“ঠাকুরাকোনা রেলব্রিজে এক অনন্য নজিরবিহীন ঘঠনা
ঢাকা থেকে মোহনগঞ্জ গামী হাওর এক্সপ্রেস ট্রেন ঠাকুরাকোনা স্টেশান থেকে রাত ৩ টায় ছেড়ে যাওয়ার সময় ঠাকুরাকোনা রেলব্রিজে প্রায় ৩ ঘন্টা দারানো ছিল। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়,,,ট্রেনটি আপ্রান চেষ্ঠা ও ছোটাছুটি করে যাওয়ার জন্য এবং পোলস্পিডে চলমান থাকে কিন্তুু ট্রেন জায়গা থেকে নড়ে না,,, এতে ট্রেনের চাকা এবং রেললাইন ক্ষতবিক্ষত হয়,,,এবং পড়ে ফজরের আযার দেওয়ার সাথে সাথে ট্রেনটি পুনরায় চলে। তবে এখন পর্যন্ত কেউ মূল তথ্য পাই নি কিভাবে বা কেন হয়েছে।”

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments