Tuesday, November 29, 2022
মূলপাতানেত্রকোনার সংবাদআটপাড়া উপজেলাআটপাড়ায় ইউএনও কান্ডে হতভম্ব এলাকাবাসী

আটপাড়ায় ইউএনও কান্ডে হতভম্ব এলাকাবাসী

নেত্রকোনার আটপাড়ার ইউএনও কাউন্টার মামলার তদন্তে গিয়ে হত্যা চেষ্টার হুকুমের আসামীর আপ্যায়নের অতিথি হওয়ার ঘটনায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারী) বিকালে উপজেলার যাদপুরে নির্বাহী অফিসার মাহফুজা সুলতানা গেলে এমন ঘটনা ঘটে। এর আগে গত ৫ জানুয়ারী ইউপি নির্বাচনের দিনে অযাচিতভাবে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পথচারীদের মোটর সাইকেলের চাকা ফুটো করে দেন তিনি। এ ঘটনায় পরদিন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে একটি লিখিত দিয়েছেন এস এ টিভির সাংবাদিক।

নেত্রকোনার আটপাড়ায় ইউএনওর এমন কান্ডে দীর্ঘদিন ধরে এলকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টির পাশাপাশি জনগনের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, আটপাড়া উপজেলার স্বরমুশিয়া ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের রাজস্ব শাখায় (মুন্সিখানা) কর্মরত অফিস সহকারি পদে সিদ্দিকুর রহমান আশিল মিয়ার নামে হত্যা চেষ্টার মামলা রয়েছে। এছাড়াও প্রভাবখাটিয়ে জমি জমার অঢেল মালিক হয়ে মানুষকে হয়রানির ঘটনায় এলাকাবাসীর গণ স্বাক্ষরিত অভিযোগ রয়েছে জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে।

এসব থেকে বাঁচতে চাকুরির দোহাই দিয়ে উল্টো হত্যার উদ্যেশ্যে আহত করা ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধেই লুটপাটের মামলা সাজিয়ে শুননির লিখিত নেন। এর প্রেক্ষিতেই ইউএনও শুনানীতে গিয়েছিলেন বৃহস্পতিবার। সেখানে পুলিশ বা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কেউই ছিলোনা। তিনি তার শিশু সন্তান নিয়ে নিজস্ব সিকিউরিটি ও কর্মচারী নিয়েই যান। এসময় উভয় পক্ষের বক্তব্য না শোনা ও ইএনওর সামনেই হত্যা চেষ্টার মামলার আসামী সিদ্দিকুর রহমান উল্টো বাদীপক্ষের লোকজনদেরকে ধমকের সুরে জেরা শুরু করেন।

এমন ঘটনার প্রেক্ষিতে স্থানীয় সংবাদ কর্মীদের উপস্থিতির বিষয়টি অবগত হন ইএনও। পরে সাংবাদিকদের এ ঘটনার বিষয়ে রেকর্ড নিতে নিষেধ করেন। সেই সাথে সংবাদকর্মীদের আসতে বলেছে কে? জানতে চেয়ে অশালীন আচরণ শুরু করেন। এসময় সংবাদকর্মীরা বিব্রত বোধ করলেও প্রতি উত্তরে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ গোপনীয়সহ কিছু বিষয় ছাড়া সংবাদ সংগ্রহে কোথাও যেতে হলে দাওয়াতের কিংবা অনুমোদন প্রয়োজন হয় না বলে সাফ জানিয়ে দেন তারা।

এর পরপরই জামিনে মুক্ত আসামি সিদ্দিকুর রহমান আশিল মিয়ার বাড়ি থেকে আসা আপ্যায়নের নাস্তা পানি গ্রহণ না করেই তারাহুরো করে কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন তিনি।

এদিকে ভিত্তিহীন মামলার তদন্তে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপস্থিতি ও একতরফা সাক্ষ্য গ্রহনের ঘটনা বিরল বলে স্থানীয়রা মন্তব্য করেন। সরকারী ভাবে প্রভাব বিস্তার সহ জনগনের প্রতি অমানবিক আচরণ করার অভিযোগ করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন এলাকাবাসী।

শুনানরি চিঠি পাঠিয়ে এসে এমন নামকাওয়াস্তে পক্ষপাত তদন্তে আবার কিছু না বলেই ঘটনাস্থল ত্যাগ করায় ইউএনওর কান্ডে অনেকটাই হতভম্ব ও বিভ্রান্তিতে পড়েছেন গ্রামবাসী। স্থানীয় প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তার এমন ভূমিকায় জনমনে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্নের। এ ব্যাপারে ইএনও সংবাদকর্মীদের সাথে কোন কথা বলতে নারাজ।

তবে আটপাড়া থানার ওসি জাফর ইকবাল জানান, এতে মামলার তদন্তে কোন প্রভাব পড়বে না। যেহতেু জেলা প্রশাসনে কর্মরত তাই হয়তো অনুসন্ধানে গিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য, প্রথম ধাপে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহারের ঘর নির্মাণে ব্যাক্তি মালিকানাদের উচ্ছেদ করে গৃহ নির্মাণ করতে চাইলে আদালতের ষ্টে অর্ডারে এবং জনগনের তোপের মুখে গাড়ি থেকে না নেমেই এলাকা ছেড়েছিলেন এই ইএনও। এদিকে বিষয়টি জেনে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কাজী মো. আব্দুর রহমান গুরুত্বের সাথে ক্ষতিয়ে দেখবেন বলে আশ্বাস করেন।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments