Tuesday, November 29, 2022
মূলপাতাঅন্যান্যনেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে অনিয়মের সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকি

নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে অনিয়মের সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকি

নেত্রকোনা জেলার হাওরাঞ্চলে ফসল রক্ষা বাঁধ ও হিলিপের প্রকল্প কাজে নানা অনিয়ম অভিযোগের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে জনপ্রিয় টেলিভিশন নিউজ টুয়েন্টিফোর এবং দৈনিক সংবাদের জেলা প্রতিনিধি সোহান আহমেদকে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে তার ওপর চড়াও হওয়া এবং হত্যার হুমকির ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে এবং স্থানীয়দের প্রকাশ্য স্বাক্ষ্যতে ব্যাবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন।

জানা গেছে, নেত্রকোনার হাওর উপজেলা খালিয়াজুরীরতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নাধীন বিভিন্ন প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর মাঝে কীর্তনখোলা ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যপক অনিয়ম সহ হিলিপের বিভিন্ন প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে এ সকল অনিয়মের সংবাদ সংগ্রহ করে গত বুধবার ১০ মার্চ উপজেলা নির্বাহী অফিসার খালিয়াজুরী কার্যালয়ে আরিফুল ইসলামের সাক্ষাৎকার নিতে যান ওই সংবাদকর্মী।

এসময় আগে থেকেই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে উপজেলা চত্বরে সংবাদকর্মীকে লাঞ্চিত করার উদ্দেশ্যে স্থানীয় যুবলীগের আহ্বায়ক ফালাকের সমর্থক বলে পরিচিত উশৃংখল বেশ কযয়েকজন যুবক নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়।

পরবর্তীতে নিবার্হী অফিসারের সাক্ষাৎ শেষ করে ক্যামেরা পার্সন আরিফকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে হাওরের দিকে রওনা হন। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা উপজেলা যুবলীগের উশৃংখল সদস্যরা ও কীর্তনখোলা ফসল রক্ষা বাঁধের পিআইসি আহাদ নূর, মোটরসাইকেল যোগে উপজেলা চত্বরে আসার পথে হঠাৎ একটি ইজিবাইককে ওভার টেকিং করে ইচ্ছাকৃত এবং উদ্যেশ্য প্রণোদিতভাবে সংবাদকর্মীর মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়।
এতে সোহান আহমেদ গুরুতর আহত হন। এসময় তার বাম হাতটি ভেঙ্গে যায়।

পরবর্তী সময়ে চালক আহাদ নূরকে তার ভুলটি বুঝাতে গেলে ক্যামেরাপার্স আরিফের দিকে মারাত্মকভাবে আঘাত করতে চেষ্টা করে আহাদ নূর।

এসয় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে উপস্থিত থাকা উপজেলা যুবলীগের উশৃংখল কর্মীরা সংবাদকর্মীর গাড়ি ও ক্যামেরা ভাংচুরের চেষ্টা করে। সেইসাথে সাংবাদিকদের মেরে ফেললে কিছুই হয় না, হবেনা, তাই তোদের কেও মেরে হাওরে ফেলে রাখলে কিছুই হবে না বলে প্রাণ নাশের হুমকি ধমকি প্রদর্শন করতে থাকে। এ ঘটনা দেখে স্থানীয়রা এগিয়ে আসেন।

পরে স্থানীয় গণ্যমান্যসহ অনেকেই তাদেরকে শান্ত হতে বললেও বারবার ক্যামেরা পার্সনেেক মারধর করতে উদ্যত হয়ে তেরিয়ে আসে আহাদ নূর ও আরো বেশকজন। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় সংবাদকর্মীগণ দ্রæত স্থান ত্যাগ করতে বাধ্য হন।

পরবতীতে নেত্রকোনা সদরে এসে বৃহস্পতিবার সকালে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শে এক্সরে করার পর সাংবাদিক সোহান আহমেদের বামহাতটি প্লাস্টার করে দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। বর্তমানে তিনি বাসায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এমন অবস্থায় উপজেলা চত্বরে সাধারণ জনগণের সামনে প্রথম শ্রেণীর গণমাধ্যমে কর্মরত একজন সাংবাদিক ও জেলা প্রেসক্লাবের সম্মানিত সদস্য ও সাংবাদিক সমাজকে চরম ভাবে মানহানি করা হয়েছে বলে মনে করছেন আহত সাংবাদিক সোহান। সেই সাথে মহান সাংবাদিকতা পেশাকেও হুমকি প্রদর্শন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে মানহানিকর ঘটনা ও প্রাণ নাশের হুমকি প্রদানের বিষয়টি উল্লেখ করে অতি গুরুত্বের সাথে আমলে নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ প্রশাসনের কাছে তিনি আবেদন করেছেন। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুনসী দ্রæত ব্যাবস্থা নেয়ার আশ্বাস প্রদান করেছেন।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments