Thursday, July 11, 2024
মূলপাতাঅন্যান্যনেত্রকোনার দুর্গাপুরে নিখোঁজের ৫ মাস পর মাদ্রাসার শিক্ষার্থী উদ্ধার

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে নিখোঁজের ৫ মাস পর মাদ্রাসার শিক্ষার্থী উদ্ধার

মাদ্রাসা থেকে নিখোঁজ হওয়ার ৫ মাস পর নাঈম হোসেন (১৪) নামে এক শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করেছে দুর্গাপুর থানার পুলিশ । মঙ্গলবার রাতে ময়মনসিংহ থেকে উদ্ধার করে শিশুটিকে দূর্গাপুর থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া নাঈম নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার কাকৈরগড়া ইউনিয়নের রামবাড়ি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

পুলিশ ও নাঈমের পরিবার সূত্রে জানা যায়, নাঈম হোসেন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে নূরানীয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ছিলো। গত বছরের ১১ অক্টোবর আব্দুর রাজ্জাক ছেলেকে দেখতে মাদ্রাসা যান। কিন্তু মাদ্রাসায় ছেলেকে দেখতে না পেয়ে শিক্ষকদের কাছে জানতে চাইলে তারাও কিছু জানাতে পারেন না । পরে ছেলের সন্ধানে পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেন।

না পেয়ে নাঈমের বাবা আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে গত ১৫ নভেম্বর মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকে আসামি করে দুর্গাপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তভার পাওয়ার পর শিশুটির সন্ধানে মাঠে নামে দুর্গাপুর থানা পুলিশ।

বিভিন্ন স্থানে খুঁজাখুঁজি করে একপর্যায়ে মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) রাতে ময়মনসিংহের একটি বাজার থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ ।

এদিকে উদ্ধার হওয়া পর শিশু নাঈম জানিয়েছে তাকে অপহরণ করা হয়নি। মাদ্রাসায় পড়াশোনা করতে ভালো লাগে না বলে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে ছিলো। কিন্তু এ ঘটনায় যদি তাকে মারধর করে বাড়ির লোকজন তাই এতদিন ভয়ে পরিবারের কাছে ফিরেনি শিশু নাঈম।

এ ব্যাপারে দুর্গাপুর থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত মীর মাহবুবুর রহমান সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শিশুটি ওই মাদ্রাসায় পড়াকালে এক বাড়িতে লজিং থাকতো। একদিন টাকা চুরি করে ফেললে ওই বাড়ির লোকজন তাকে মাদ্রাসায় পাঠিয়ে দেয়। যে কারনে লজ্জায় হয়তো কাউকে কিছু না বলে পালিয়ে যায়।

শিশুর বাবা মামলাটি করলে আমরা আমলে নিয়ে তার খোঁজ করি। কিন্তু কোন ফোন না থাকায় আমরা ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে সোর্স লাগিয়ে তাকে খুঁজে পাই। তবে শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলাটি মিথ্যা বলেও জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments