Thursday, April 18, 2024
মূলপাতাঅন্যান্যফসল রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ কাজের ১০ পি আইসি সভাপতিকে ডিসির তলব

ফসল রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ কাজের ১০ পি আইসি সভাপতিকে ডিসির তলব

নেত্রকোনার হাওরাঞ্চল খালিয়াজুরী ফসল রক্ষা বেরিবাঁধ নির্মাণ ও মেরামত কাজ সরেজমিনে পরিদর্শন করেছে জেলা মনিটরিং কমিটি।

উপজেলার ১১০ টি প্রকল্পের মধ্যে বেশ কিছু প্রকল্পের কাজের আশংকাজনক ধীরগতির কারণ খুঁজতে জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের মনিটরিং কমিটিরসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে দিনব্যাপী অভিযুক্ত পি আই সি গুলো পরিদর্শন করা হয়।
এর মধ্যে প্রভাবশালী নেতাকর্মী ও উপজেলা কাবিটা কমিটির সদস্যসহ জনপ্রতিনিধির স্বামীসহ ১০ জনের কাজের আশংকাজনক ধীরগতি থাকায় তাদেরকে তলব করা হয়।
খালিয়াজুরী উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম মিয়ার কক্ষে জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজ তাদের জবাদিহিতার আওতায় আনেন।
এসময় ১০ জনের মধ্যে কয়েকজন উপস্থিত হলেও অনেকে লাপাত্তা। তারা তলবে যেমন আসেননি। বাঁধের কাজেও পাওয়া যায় নি।

সেইসাথে খালিয়াজুরী উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের মাঝে একজন চেয়ারম্যান ছাড়া অন্যারাও উপস্থিত ছিলেন না। তারা কেন উপস্থিত ছিলেন না এ ব্যাপারে ইউএনও কোন সদোত্তর দিতে পারেন নি।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ড বারবার তাগিদপত্র প্রেরণ সহ দ্রুত বাঁধ মেরামতের জন্য অবহিত করলেও নানা ধরনের যুক্তি তুলে ধরেন তলব সভায় উপস্থিত কয়েকজন পিআইসির সভাপতিরা। মনিটরিং কমিটির সামনে তলব সভায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলীগণ কাজের অগ্রগতি তুলে ধরেন। এসময় যে যে পি আই সি গাফলতি করছে সেগুলোও উল্লেখ করেন।
পরে জেলা প্রশাসক পি আই সি সভাপতিদের উদ্দেশ্যে বলেন, কাজের সময় আপনারা ২০০ জন এসেছেন। তাদের মধ্য থেকে যাচাই বাছাই করে দেয়া হয়েছে। এমন না যে আমরা আপনাদের কাছে গিয়ে জোর করে কাজ দিয়েছি। এখন কেন আপনাদের পেছনে ঘুরতে হবে। তিনি এসময় বলেন আন্তরিক হয়ে আগামী ৫ দিনের মধ্যে কাজ শেষ করেন। কারণ কৃষকদের এটা স্বপনের ফসল। কেউ কেউ একেবারে নি:স্ব হয়ে পরবে ডুবে গেলে। তাই তাদের চিন্তা করে কাজগুলো দ্রুত করার নির্দেশ দেন।
এসময় উপজেলা যুবলীগের নেতা আহাদ নুর ৭ নং পি আইসির সভাপতি জানান, তারা কাজ বুঝে পেয়েছেন জানুয়ারির ২৫ তারিখ।
এছাড়া এসকেভেটর সহ নানা সমাস্যায় দেরি হয়েছে।
অবশেষে জেলা প্রশাসকের সামনে কাজ নির্ধারিত সময় ২৮ ফেব্রুয়ারিতেই শেষ করার প্রতিজ্ঞা করেন তারা।
নাওটানা ১ নং পি আই সির সভাপতি বিধান কৃষ্ণ সরকার বলেন টাকা সবটা পেতে দেরি হয় তাই কাজের একটু বিলম্ব।

উপজেলা কাবিটা কমিটির সদস্য মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হেপি সরকার তার স্বামী বিধান কৃষ্ণ সরকারের কাজ পাওয়ার বিষয়ে তিনি নানা যুক্তি তুলে ধরে বলেন কৃষক হিসেবে কাজ পেতেই পারেন।

তাছাড়া অভ্যন্তরীণ সমস্যায় কাজের ধীরগতির কারণ উল্লেখ করে বলেন নির্ধারিত সময়ে শেষ হবে কাজ।
এদিকে তলব সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি তপন বাঙ্গালী বলেন, পি আই সি কমিটির কাজ এমন হওয়ার কারণ হচ্ছে তারা প্রভাব খাটিয়ে কাজগুলো নিয়ে সাব লিজ দিয়ে দেয়। আর কোন নীতিমালা তাদেরকে দেয়া হয় এইটাই বুঝা যায় না। শুধু টাকার চিন্তাই করে।
জানা গেছে জেলার মোট ১৫৫ কিলোমিটার ফসল রক্ষা বেরিবাঁধের মধ্যে খালিয়াজুরী উপজেলার ৯২ কিলোমিটার বাঁধের কাজ করছে ১১০ টি পি আই সি।
এবছর মোট ২০ কোটি ৯৬ লাখ টাকার কাজ চলছে খালিয়াজুরীতেই।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সারওয়ার জাহান জানান, হাওরাঞ্চলে ৪২ হাজার হেক্টর বোরো আবাদ হয়। আর এই ফসল রক্ষায় এবার ১৮০ টি পি আইসির মাধ্যমে কাজ হচ্ছে।
তবে ১০ জনের কাজে খুব বেশি অসন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন তাদেরকে বারবার তাগিদ দিয়েও কাজের অগ্রগতি বাড়ানো যাচ্ছে না। জেলা মনিটরিং কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজ জানান তাদের কাজের গাফিলতির কারণে কোন সমস্যা হলে অবশ্যই নীতিমালা অনুযায়ী যে ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে তাই নেয়া হবে।
আমরা দেখে গেছি অন্য কাজ গুলো মোটামুটি এগিয়েছে। কিন্তু এই ১০ টি প্রকল্প নিয়ে আমরা চিন্তিত।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments