Sunday, November 27, 2022
মূলপাতানেত্রকোনার সংবাদনেত্রকোনা সদর উপজেলাবিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে নেত্রকোনা অঞ্চলকে স্বপ্নের নেত্রকোনা তৈরীতে আমাদের প্রত্যাশা তুলে ধরা...

বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে নেত্রকোনা অঞ্চলকে স্বপ্নের নেত্রকোনা তৈরীতে আমাদের প্রত্যাশা তুলে ধরা হলো

আমাদের অর্জন সমূহ:
১। শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় ২। মেডিকেল কলেজ ৩। আন্ত:নগর ট্রেন চালু ৪। দূর্গাপুরের সাদামাটির জিআই সনদ প্রাপ্তি ৫। বাইপাস লিংক সড়ক ৬। বঙ্গবন্ধু চত্বর (প্রস্তাবিত)।

আমাদের প্রত্যাশা সমূহ:
১। সকল প্রাণের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা ২। নেত্রকোনায় সংস্কৃতি চর্চা বিকাশে মানসম্মত ছোট বড় অডিটরিয়াম নির্মাণ ৩। মগড়া নদী ও দুষণমুক্ত রাখা ৪। জলাভ‚মি সুরক্ষা ৫। দুর্নীতিমুক্ত জেলা ৬। প্রাণবৈচিত্র্য রক্ষা ৭। জলবায়ু ন্যায্যতা ৮। বহুত্ববাদি সমাজ ৯। বাস্তুতন্ত্র পুনরুদ্ধার ১০। প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য রক্ষা ১১। আদিবাসিদের ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষার উদ্যোগ ১২। সবুজ জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি ১৩। সকল পেশার জন্য মানবিক নগর ১৪। রাসায়নিকের ব্যবহার কমানো ১৫। সাইডুলি নদী ও ডুপিকালি নদীসহ জেলার ৫৮ নদী খনন করার উদ্যোগ গ্রহণ ১৭। মানসম্মত শিক্ষা ১৮। নারীর জন্য নিরাপদ ও মানবিক সমাজ ১৯।

যানজট নিরসনে থানার ব্রীজ প্রশস্তকরনসহ মেইন সড়কের উপরে নির্মাণ সামগ্রীর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাক/ভ্যানের সময় নির্ধারণ করে দেয়া ২০। মাদকমুক্ত নেত্রকোনা ২১। চিকিৎসা বাণিজ্য নয়, সকলের জন্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা ২২। কলমাকান্দা-দুর্গাপুর এলাকার বিলুপ্ত প্রানি রক্ষা ২৩। মগড়ার দুই তীর দখলমুক্ত করে সৌন্দর্য্য বর্ধন করা ২৪। মোক্তারপাড়ায় মগড়া ব্রিজ ভেঙ্গে নির্দিষ্ট উচ্চতায় পুন:স্থাপন করা ও ব্রিজের দুইপাশের প্রতিবন্ধক সরিয়ে পানি প্রবাহ নিশ্চত করা ২৫।

পাহাড়ী বালির আগ্রসন থেকে জেলার সীমান্ত এলাকার ভরাট হয়ে যাওয়া ভূমি রক্ষার উদ্যোগ ২৬। শিশুর জন্য নিরাপদ পরিবেশ ২৭। নেত্রকোনা জেলার দূর্গাপুর-কলমাকান্দা-হাওর এলাকায় পর্যটন স্পট গড়ে তোলা ২৮। কৃষি জমি সুরক্ষা আইন বাস্তবায়ন ২৯। নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থা ৩০। মিঠা পানির মাছ সংরক্ষণ ৩১। বিষনাই ,ধনু, উবদাখালী, মগড়া নদীতে মাছের অভয়াশ্রম গড়ে তোলা ৩২। হাওরে পানি সহনশীল উদ্ভিদ (হিজল, করচ গাছ) রক্ষা ৩৩। সোমেশ্বরী নদীতে ঝুলন্ত ব্রীজ নির্মাণ ৩৪। বিলুপ্ত উদ্ভিদ সংরক্ষণ করা ৩৫।

যানজটমুক্ত নেত্রকোনা গড়তে বাইপাস সড়ক নির্মাণ ৩৬। আন্ত:নগর ট্রেনে নেত্রকোনার জন্য আসনসংখ্যা বাড়ানো ৩৭। বিদেশী আগ্রাসী প্রজাতি উদ্ভিদ ও প্রাণি নয়, স্থানীয় প্রাণবৈচিত্র্য রক্ষা ৩৮। সরকারী পুকুরগুলোর সংস্কার করা, দখল মুক্ত করে চারপাশ ওয়াকওয়ে নির্মাণ ৩৯। শিশুদের খেলাধুলার জন্য মাঠের ব্যবস্থা করা (কলেজ মাঠ, কাটলি দত্ত উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ ও মোক্তারপাড়া মাঠকে খেলার উপযোগী করা) ৪০।

ইউক্যালিপটাস, একাশিয়া, ইপিল ইপিল, শিশু গাছ রোপন বন্ধ করা ৪১। খাদ্যযোদ্ধা কৃষকদের জন্য পেনসন চালু করা ৪২। লোকালয়ের কাছে ইট-ভাটা তৈরীর অনুমতি না দেয়া, বিদ্যমানগুলো অচিরেই সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেয়া ৪৩। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সবুজ ক্যাম্পাস গড়ে তোলা ৪৪। সুমেশ্বরী নদীর অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করা ৪৫। শহরের ভেতরের বিলুপ্ত খালগুলো চিহ্নিত করে উদ্ধার করা ৪৬। নেত্রকোনায় লোকসংস্কৃতি যাদুঘর গড়ে তোলা ৪৭। প্রখ্যাত বংশীবাদক বারী সিদ্দীকী, চন্দ্রকুমার দে, জালাল খাঁ, রশিদ উদ্দিন, উকিলমুন্সীর বাড়ির স্মৃতি রক্ষায় উদ্যোগ গ্রহণ ৪৮। নেত্রকোনায় জনগণের জন্য একটি বিনোদন পার্ক গড়ে তোলা ৪৯। বৈষম্যহীন খেলার মাঠ তৈরী করে অগনিত শিশু কিশোর যুবকদের জন্য সারা বছর ধরে সহজলভ্য দেশীয় খেলার সরকারীভাবে আয়োজন ৫০। অটোরিক্সার নিয়ন্ত্রণ আনয়ন করে শহরে সাধারণ মানুষের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করা।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ সংবাদ

Recent Comments